নজরুল প্রেমী সৈয়দ আলী হাকিমের লেখা বিশ্বকবি নজরুল গ্রন্থটি তুলে দিলেন সাংবাদিক, কবি ও চিত্রশিল্পী সবার হাতে

স্টাফ রিপোর্টার

চিত্রশিল্পী মিলন বিশ্বাস, খুলনায় থাকেন খুলনা আর্ট একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক, খুলনাতে সুপরিচিত। কবি মোঃ রহমত আলী খালিশপুরে থাকেন। আমি আহমেদ হোসাইন ছানু আলো মিডিয়া গ্রুপ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আমি ঢাকাতে থাকি। আজকালের আলো সাহিত্য সম্মাননা ২০২৪ প্রদান অনুষ্ঠান খুলনা আর্ট একাডেমিতে অনুষ্ঠিত হয়। আর্ট একাডেমির সুযোগ্য পরিচালক যিনি চিত্রশিল্পী কিন্তু তিনি একাধিক বিষয় নিয়ে সাধনা করেন। সাহিত্যচর্চার অঙ্গনেও সুনাম অর্জন করেন। তার সঙ্গে দুইটা দিন কাটাই। হঠাৎ করে চিত্রশিল্পী মিলন বিশ্বাস বলেন চলুন আপনাদের ভালোলাগার একটা স্থানে নিয়ে যাই। আমি তাকে গুরু মনে করি। আপনাদের ভালো লাগবে তিনি একজন আমার দেখা শ্রেষ্ঠ ভালো মানুষ। যদিও হাতে খুবই সময় কম তবুও রাত ৮টার সময় গাড়ির টিকিট কাটি, রাত ১২:১৫মিনিটে ঢাকার গাড়ি
খুলনা রয়েলের মোড় থেকে। চিত্রশিল্পী মিলন বিশ্বাস দাদা ও কবি রহমত আলী ভাইর সঙ্গে খুলনার দর্শনার্থী স্থান ঘুরে দেখার সুযোগ হয়েছে। আসলেই অসাধারণ পরিবেশে নিয়ে গেলেন যেদিকে তাকাই শুধু বই আর বই। ১০, সৈয়দ লেন, পূর্ব বানিয়াখামার, খুলনা। নজরুল প্রেমী সৈয়দ আলী হাকিম এর নিজ প্রচেষ্টায় গড়ে তুলেছেন সৈয়দ আলী হাকিম গণ গ্রন্থাগার ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম গবেষণা পরিষদ, খুলনা। যেখানে নতুন পুরনো বই সংরক্ষিত আছে ১০ হাজারের উপরে। আমরা দেখে অভিভূত হয়েছি এবং যার কথা চিত্রশিল্পী মিলন বিশ্বাসের মুখে শুনে ছুটে গিয়েছিলাম গিয়ে দেখতে পেলাম ৬৩ বছরের এক পিতা সমতুল্য ব্যক্তিকে। মিলন বিশ্বাসের সাথে সম্মানের সহিত কথা বললেন, সঙ্গে আমাদেরও বুকে জড়িয়ে নিলেন। তখন যে আনন্দঘন মুহূর্ত লিখে বোঝানো যাবে না। তাৎক্ষণিকভাবে আমাদের হাতে তুলে দিলেন একটি করে চকলেট তখন মিলন বিশ্বাসের মুখ থেকে শুনলাম তিনি খুলনাতে চকলেট কবি নামেও বেশ পরিচিতি লাভ করেন।
আমি বলব আসলে ভালো মানুষের সঙ্গে ভালো মানুষের পরিচয় হয় কারণ মিলন বিশ্বাস আমার দৃষ্টিতে একজন সাদা মনের মানুষ। আর তিনি নিয়ে গেছেন যার কাছে তিনি ও একজন প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত। শহরের উপরে নিজের বিলাসবহুল বাড়ি। কিন্তু তার ব্যবহার মন মানসিকতা অতুলনীয়। এই জগতে এমন মানুষও আছে আমার দৃষ্টিতে উনি একজন গুণীজন। এমনও কিছু মানুষ আছে যাদের সঙ্গে কথা বলা তো দূরের কথা তাদের ছত্রছায়ায় যাওয়া সম্ভব হয় না। কিন্তু নিজে যে অতিথি আপ্যায়ন করেছেন এবং নজরুল সম্পর্কে তিনি যে গবেষণা করেন তার নিজের লেখা গ্রন্থ আমাদের সকলকে তুলে দিলেন আশা করি এই বইটির মধ্যে নজরুল সম্পর্কে অনেক তথ্যই জানতে পারবো। তাই বইটি পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত। আমরা সবাই আলো মিডিয়া গ্রুপ এর পক্ষ থেকে গুণীজনকে ধন্যবাদ জানাই। তারি সাথে তাকে পরবর্তীতে গুণীজন সম্মাননা প্রদান করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দীর্ঘ সময় সাহিত্যচর্চা সম্পর্কে আলোচনা করে আমরা সকলে লাইব্রেরী থেকে রওনা হই। তিনি লাইব্রেরীতে যে আপ্যায়ন করেছেন তাতে তিনি সন্তুষ্ট হতে পারেননি। তাই আমাদের সঙ্গে এগিয়ে দেওয়ার কথা বলে রাস্তায় চলে আসেন বেশ খানিকটা পথ। আমরা বুঝতেই পারিনি তার উদ্দেশ্য। কিছুটা সামনে একটি দোকান দেখা যাচ্ছে রাত অনেক হলো ওখানে গিয়ে সবাইকে দাঁড়াবার কথা বলেন এবং দোকানদারকে বলেন উনারা আমার অতিথি ওনাদের আপ্যায়ন করতে হবে। চা বিস্কুট পান করিয়ে তারপরে ওখান থেকে ধন্যবাদ জানিনে বিদায় নিয়ে। এবং পরবর্তীতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন সময় করে যেতে বলছেন। অল্প সময়ের মধ্যে এতটা সুন্দর একটি সম্পর্ক তৈরি হলো এটা একমাত্র গুনী মানুষদের পক্ষে সম্ভব। তার সম্পর্কে আমার লেখাটা হয়তো কিঞ্চিত মাত্র। রহমত ভাই যদিও খুলনার খালিশপুরে বসবাস করেন মাঝে মধ্যে তার সঙ্গে দেখা হবে কিন্তু আমি ঢাকায় থাকি তাই ইচ্ছা করলেই সকলের সাথে দেখা করা সম্ভব না।তবে গুণীজন কে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি খুলনায় আসলে আপনার সঙ্গে দেখা হবে।আপনি সবসময় ভালো থাকবেন এমনটা প্রত্যাশা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *