সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে নালিতাবাড়ীর পন্ডিত স্যার

আমানুল্লাহ আসিফ,বিশেষ প্রতিনিধি:

শ্রী নিশিকান্ত
ভাদুড়ী সবাই চেনে পন্ডিত স্যার নামে। গাড়ো পাহাড়ের পাদদেশে ভারত সীমান্ত ঘেঁষা শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে ছিলেন তিনি।

সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন এই কীর্তিমান শিক্ষাগুরু। ৮মে বুধবার রাত সাড়ে আটটায় উপজেলার বাঘবেড় বামুনপাড়া নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৬বছর। শ্রী নিশিকান্ত ভাদুড়ীর মৃত্যুতে রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক এবং শিক্ষাঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মৃত্যুর পরের দিন বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় মরহুমের মরদেহ তার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল তারাগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য রাখা হয়। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক সংগঠন, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ পুষ্পস্তবক দিয়ে এই গুনী ব্যক্তির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এসময় স্কুলের শিক্ষার্থীরা তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদর্শন করেন। তার প্রতি শোক প্রকাশ করে একমিনিট নীরবতা পালন করেন উপস্থিত সকলে।
শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বক্তব্য রাখেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব ও এসডিএফ চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ ফারুক, উপজেলা চেয়ারম্যান মোকছেদুর রহমান লেবু, পৌর মেয়র আবু বক্কর সিদ্দিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আসমত আরা আসমা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোশারফ হোসেন, প্রেসক্লাব নালিতাবাড়ীর উপদেষ্টা সিনিয়র সাংবাদিক এমএ হাকাম হীরা, সভাপতি আব্দুল মান্নান সোহেল, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মুসা, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুনীরুজ্জামান প্রমুখ। এছাড়াও তারাগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক ও স্বাশিপের নালিতাবাড়ী উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম খোকনের সঞ্চালনায় পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য উপস্থাপন করেন প্রয়াত শিক্ষকের কন্যা নাজমুল স্মৃতি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক কমনরুম বিষয়ক সম্পাদক অরুণা ভাদুড়ী।
এসময় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
বেলা দুইটায় বাঘবের
মহাশ্মশানে এই গুনী ব্যক্তির শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *